Junglemahal tourism | Santrakhula Waterfall Garbeta West Midnapore

Santrakhula Junglemahal

Junglemahal tourism | Santrakhula Waterfall Garbeta West Midnapore 

আমরা যখন উইকএন্ড ডেস্টিনেশন এর কথা ভাবি প্রথমে মনে আসে দিঘা আর মন্দারমণি। এছাড়াও যে আরো অনেক সুন্দর সুন্দর জায়গা আমাদের কাছে আছে সে সম্পর্কে আমরা  খুব একটা অবগত নই তাই আজ আমরা নতুন এক জায়গার সম্পর্কে জানব। 





 


সাঁতরাখুলা জলপ্রপাত একটি ছোট্ট অথচ খুব সুন্দর জায়গা যেখানে একদিনের জন্য চড়ুইভাতির অয়োজন করে এখানের জলপ্রপাত, পদ্মপুকুর ও শাল জঞ্জলের সৌন্দর্য্য উপভোগ করা টা মন্দ হবে না। স্থানীয় লোকজনের জন্য এটি একটি জনপ্রিয় চড়ুইভাতির গন্ত্যব্য যদিও এখান থেকে ১০কিমি এগিয়ে গেলে এই জায়গা সম্পর্কে কেউ জানে না। এখানের সন্দর্য্য উপভোগ করার জন্য ১ দিনের ভ্রমণ ই যথেষ্ট যদি কেউ এক দিনের বেশি ঘুরতে চাই তাহলে এখেনে আসেপশে  আরো অনেক জায়গা আছে যেমন গণগনি বিষ্ণুপুর ঘুরে নিতে পারে।

সাঁতরাখুলা জলপ্রপাত পশ্চিম বঙ্গের  পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার গড়বেতা থেকে ১৫ কিমি দুরে অবস্থিত। এখানে পৌঁছানোর জন্য কোন পাবলিক ট্রান্সপোর্ট নেই তাই পৌঁছানো টা যথেষ্ট কষ্টকর। কেউ যদি গাড়ি অথবা বইকে আসে তাহলে পৌঁছানো টা অনেক সুবিধা হবে। 

কিভাবে পৌছাবো : 

ট্রেন অথবা বসে করে প্রথমে পৌঁছাতে হবে গড়বেতা ওখান থেকে বাস অটো অথবা টোটো করে পৌঁছাতে হবে হুমগড়ে যেটি গড়বেতা থেকে ১০কিমি দুরে অবস্থিত। হুমগড়থেকে সাঁতরাখুলা ৫কিমি দুরে অবস্থিত তাই এখান থেকে টোটো অথবা গাড়ি ভাড়া করে পৌঁছাতে হবে সাঁতরাখুলা। 

ভাড়া : 

  • হাওড়া থেকে গড়বেতা ট্রেন ভাড়া 
  1. এক্সপ্রেস : প্রায় ৯০ টাকা 
  2. প্যাসেঞ্জার : প্রায় ৪০ টাকা 
  • গড়বেতা থেকে হুমগড় 
  1. বাস: প্রায় ১৫ টাকা 
  2. টোটো /অটো : প্রায় ২০টাকা 
  • হুমগড় থেকে সাঁতরাখুলা এবং ফেরত আসা : এর সম্পর্কে হুবহু তো বলতে পারব না  কিন্তু ৩০০থেকে  ৪০০ টাকা নেবে আসা করা যায়। 

থাকার জায়গা :

এখানে আসে পশে গড়বেতা ছাড়া অন্য কোনো থাকার জায়গা নেই এবং থাকতে হলে অতি অবশই আগে থেকে লজ বুক করে আসতে হবে। 

খাবার জায়গা :

সাঁতরাখুলা একটি জনমানব শুন্য জায়গা তাই এখানে কোনো খাবার দোকান নেই। এখান থেকে  সবথেকে কাছের বাজার হল হুমগড় বাজার তাই যদি কিছু কেনাকাটি করার থাকে তাহলে সর্বশেষ জায়গা হল হুমগড়।

সাবধানতা :

এই জায়গাটা জনমানব শুন্য এবং জঙ্গলের পাসে তাই যেন কোনো মহিলা বা মহিলার গ্রূপ একা একা যেন না আসে এবং হুমগড় থেকে সাঁতরাখুলা যাওয়ার পূর্বে গাড়ির নম্বর এবং ড্রাইভার এর ছবি যেন বাড়ির কাউকে পাঠিয়ে রাখে। 

Comments

Popular Posts